• বিদেশ ডেস্ক
  • ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১০:০৯:১৩
  • ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১০:০৯:১৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

‘নিরীহ’ বিক্ষোভকারীদের মুক্তির আহ্বান খামেনীর

ছবি : সংগৃহীত

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে ইরানজুড়ে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ করছে জনতা। এরই মধ্যে এ বিক্ষোভে বহু হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। আটকের সংখ্যাও শত শত। আটক এসব বিক্ষোভকারীদের মধ্যে যারা নিরীহ ও নিরস্ত্র তাদের অবিলম্বে মুক্তি দেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনী। একইসঙ্গে তিনি সাম্প্রতিক সহিংসতার মূল কারণ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে পার্সটুডে।

গতকাল ৪ ডিসেম্বর, বুধবার ইরানের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা কাউন্সিলের সচিব আলী শামখানির এ সংক্রান্ত এক চিঠির জবাবে খামেনী বলেন, ‘সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের বিষয়ে ইসলাম ভিত্তিক ক্ষমার নীতি অনুসরণ করতে হবে।’

চিঠিতে তিনি বলেন, ‘যেসব সাধারণ মানুষ সহিংসতায় জড়িত ছিল না কিন্তু সহিংসতার মধ্যে পড়ে জীবন হারিয়েছেন তাদেরকে শহীদ হিসেবে গণ্য করা হবে এবং শহীদ ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে নিহতদের পরিবারকে সহযোগিতা করা হবে।’

এ সময় তিনি সহিংসতায় নিহত নিরপরাধ ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেন। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা নিহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করার ওপর জোর দেন।

এ দিকে বিক্ষোভকারীদের উপর গুলি চালিয়ে হত্যার কথা গত ৩ ডিসেম্বর, মঙ্গলবার সরকারিভাবে স্বীকার করে দেশটি। রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রথমবারের মতো বিষয়টি নিশ্চিত করার পাশাপাশি ওই প্রতিবেদনটিতে বিক্ষোভকারীদের ‘দাঙ্গাবাজ’ হিসেবেই অভিহিত করা হয়।

গত মাসে পেট্রোলের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেয় ইরান সরকার। এরপরই দেশজুড়ে বিক্ষোভে নেমে আসে জনতা। কোথাও কোথাও তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে দেশটির নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনী ‘বিদেশি দুর্বৃত্তদের’ অনুপ্রবেশের অজুহাত দেখিয়ে গুলিবর্ষণ করে ও ব্যাপক ধরপাকড় চালায়।

বাংলা/এসএ

 

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0214 seconds.