• ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ২১:১৩:১৮
  • ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ২১:১৩:১৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

চাচার গায়ে চায়ের লিকার ঢেলে ঝলসে দিলেন ভাতিজা

ছবি : বাংলা

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে চায়ের কেথলির গরম লিকার ঢেলে নুরুল হক এমরান নামের এক চাচার শরীর ঝলসে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে দুই ভাতিজার বিরুদ্ধে। অভিযুক্তরা হলেন, ভাতিজা সাহাদাৎ হোসেন টিটু ও সায়েম হোসেন।

১৯ অক্টোবর, মঙ্গলবার সকাল উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়নের সৌন্দরা গ্রামে এঘটনা ঘটে। মুমূর্ষ অবস্থায় ওই চাচাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে অবস্থার অবনতি দেখে ঢাকা মেডিকেল বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়। এদিকে এ ঘটনায় বিকেলে নুরুল হক এমরানের স্ত্রী মুক্তা বেগম বাদি হয়ে অভিযুক্তদের নাম উল্লেখসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে রামগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

স্থানীয় সুত্রে জানায়, সৌন্দরা গ্রামের সওদাগার বাড়ির মৃত শামসুল হক সওদারের বড় ছেলে আব্দুল হাই ভুলু আমিন তার ছোট ভাই নুরুল হক এমরানের বিরুদ্ধে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জেরধরে লক্ষ্মীপুর আদালত ও রামগঞ্জ থানায় একাধিক মামলা চলে আসছে।

এদিকে সোমবার দুপুরে লক্ষ্মীপুর জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা খারিজ হয়ে যায়। এতে ক্ষীপ্ত হয়ে আব্দুল হাই ভুলু আমিনের পুত্র সাহাদাৎ হোসেন টিটু এবং সায়েম হোসেন ঘটনার দিন সকালে সৌন্দরা নয়াবাজারে সাইফুলের চা দোকানে চাচা নুরুল হক এমরানকে একা পেয়ে মারধর করে এবং দোকানের চা কেথলির গরম লিকার টেলে দেয়। এতে এমরানের শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

হাসপাতালে নুরুল হক এমরানের স্ত্রী মুক্তা বেগম বলেন, আমার ভাসুর আব্দুল হাই ভুলু আমিনের নির্দেশে তার দুই পুত্র সাহাদাৎ হোসেন টিটু ও সায়েম হোসেন পরিকল্পিত ভাবে প্রকাশ্যে পিটিয়ে আহত করে শরীরে চা কেথলির গরম পানি ঢেলে দেয়। এঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তিনি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত সাহাদাৎ হোসেন টিটু ও সায়েম হোসেন কাউকে পাওয়া যায়নি। 

রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, দুই ভাইয়ের মধ্যে সম্পত্তি সংক্রান্ত বিরোধ ও মামলা চলে আসছে। উক্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় আহতের স্ত্রী মামলা দায়ের করেছেন। তদন্ত করে অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

বাংলা/এএএ

 

সংশ্লিষ্ট বিষয়

লক্ষ্মীপুর

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0211 seconds.