• বিদেশ ডেস্ক
  • ১৭ নভেম্বর ২০১৯ ১৩:৩৩:০৪
  • ১৭ নভেম্বর ২০১৯ ১৩:৩৩:০৪
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

গোটাবায়াই হচ্ছেন শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট

ছবি : সংগৃহীত

দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপ রাষ্ট্র শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট হতে যাচ্ছেন দেশটির সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী গোটাবায়া রাজাপক্ষে। গতকাল ১৬ নভেম্বর, শনিবার অনুষ্ঠিত দেশটির অষ্টম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণের পর গণনায় এখন পর্যন্ত এগিয়ে আছেন গোটাবায়া। আর ইতোমধ্যে তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সাজিথ প্রেমাদাসা নির্বাচনে পরাজয় মেনে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বলে জানিয়েছে রয়টার্স ও এএফপি।

শ্রীলঙ্কান নির্বাচন কমিশনের তথ্যমতে, গণনা শেষ হওয়া প্রায় পাঁচ লাখ ভোটের মধ্যে রাজপক্ষে ৫২ দশমিক ৮৭ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। আর তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান আবাসনবিষয়ক মন্ত্রী সাজিথ প্রেমাদাসা পেয়েছেন ৩৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ ভোট। ৪ দশমিক ৬৯ শতাংশ পেয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন বামপন্থী নেতা কুমারা দিসানায়ক। এবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আরো ৩২ জন প্রার্থী অংশ নেন।

আজ ১৭ নভেম্বর, রবিবার রাতের মধ্যেই নির্বাচনে জয়-পরাজয়ের বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে যাবে বলে মনে করছে দেশটির নির্বাচন কমিশন। এরপর শিগগিরই শপথ নিবেন নতুন প্রেসিডেন্ট।

এদিকে রাজাপক্ষের মুখপাত্র কেহেলিয়া রামবুকওয়েলা এএফপিকে বলেন, ‘আমরা ৫৩ থেকে ৫৪ শতাংশ ভোট পেয়েছি। এটা পরিষ্কার যে আমরাই জয়ী হয়েছি। আমরা খুব খুশি যে গোটাবায়া দেশের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন।’

প্রাথমিক ফলাফলে দেখা গেছে, রাজাপক্ষে সিংহলি অধ্যুষিত দক্ষিণাঞ্চল ও পোস্টাল ভোটে এগিয়ে আছেন। অপরদিকে সাজিথ প্রেমাদাসার বাক্সে বেশি পড়েছে তামিল অধ্যুষিত উত্তরাঞ্চলের ভোট।

শ্রীলংকা পিপলস ফ্রন্ট’র (এসএলপিপি) প্রধান হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন গোটাবায়া রাজাপক্ষে। এ দলটি ‘চীনপন্থী’ বলে পরিচিত। এর আগে ২০০৫ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে মাহিন্দা রাজাপক্ষের শাসনকালে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন গোটাবায়া।

তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী লিবারেল ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির (ইউএনপি) সাজিথ প্রেমাদাসা বর্তমান আবাসনবিষয়ক মন্ত্রী ও সাবেক প্রেসিডেন্ট রানাসিঙ্গে প্রেমাদাসার ছেলে। এবারের নির্বাচনে প্রার্থী হননি বর্তমান প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা।

নানা সহিংসতা ও অভিযোগের মধ্যে গতকাল শনিবার দেশের ২২টি নির্বাচনী জেলার প্রায় ১৩ হাজার কেন্দ্রে ভোট দেন দেশটির প্রায় ১ কোটি ৬০ লাখ ভোটার। 

বাংলা/এসএ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0193 seconds.