• বাংলা ডেস্ক
  • ০৯ নভেম্বর ২০১৯ ১৩:৫৬:৪২
  • ০৯ নভেম্বর ২০১৯ ১৩:৫৬:৪২
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

বাবরি মসজিদ মামলার রায়: জেনে রাখুন প্রধান ৯ বিষয়

পুরনো ছবি

ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ মামলা চল্লিশ দিন টানা শুনানির পর রায় স্থগিত রেখেছিল ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। গতকাল ৮ নভেম্বর, শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আদালতের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ৯ নভেম্বর, শনিবার স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০টায় রায় ঘোষণা করবেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চ।

যথারীতি রায় ঘোষণা হয়ে গেলো। ভারতের অযোধ্যায় বিতর্কিত জমিতে একটি ট্রাস্ট গঠনের মাধ্যমে মন্দির নির্মাণের রায় দিয়েছে আদালত। একই সাথে মসজিদ নির্মাণের জন্য মুসলমানদের জন্য আলাদা জমি বরাদ্দের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

তবে ঐতিহাসিক এই রায়ের প্রধান ৯টি বিষয় জেনে রাখা দরকার-

১. রায়ে বলা হয়েছে- বাবরি মসজিদ কোনো খালি জমির উপর নির্মিত হয়নি। ভারতের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ বলেন, পুরাতত্ত্ব বিভাগ তাদের যে রিপোর্টে জানিয়েছিল, ওই বিতর্কিত জমিতে তার আগে একটি কাঠামো ছিল। যা সম্ভবত দ্বাদশ শতকে নির্মিত হয়েছিল। তবে মন্দিরই ছিল কিনা তা পুরাতত্ত্ব বিভাগ স্পষ্ট করে জানায়নি।

২. অযোধ্যায় মসজিদের দাবি কেউ কখনও ছেড়ে দেয়নি। ৯২ সালে মসজিদ ভেঙে দেওয়া হয়েছিল। তার পর নমাজ পড়া বন্ধ হয়ে গিয়েছে ঠিকই। কিন্তু মসজিদের দাবি ছেড়ে দেওয়া হয়নি।

৩. রায়ে বলা হয়- মুসলমানদের কোনোভাবে বঞ্চিত করা উচিত হবে না। মসজিদ নির্মাণের জন্য বিতর্কিত স্থান থেকে দূরে কিন্তু অযোধ্যাতেই পাঁচ একর জমি দিতে হবে সরকারকে। যাতে একটি ভব্য মসজিদ সেখানে গড়ে তোলা যায়।

৪. বিতর্কিত জমির মালিকানা নিয়ে শিয়া ওয়াকফ বোর্ডের দাবি খারিজ করে দিয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। একই সঙ্গে বলেছে, রাম লালা বিরাজমান কোনো আইনি ব্যক্তি নন। নির্মোহী আখড়াও তাই জমির মালিকানা দাবি করতে পারে না। তারা কেবল রক্ষণাবেক্ষণ করত।

৫. আপাতত জমির মালিকানা যাবে সরকারের হাতে। সরকার তিন মাসের মধ্যে একটি ট্রাস্টি বোর্ড তৈরি করবে।

৬. বিতর্কিত জমির ভেতরের চত্বর ট্রাস্টি বোর্ডের হাতে তুলে দিতে হবে। ওই ট্রাস্টি বোর্ডই ঠিক করবে তারা সেখানে কী নির্মাণ করবে।

৭. বিতর্কিত এলাকায় আইনশৃঙ্খলা ও শান্তি বজায় রাখতে হবে ভারত সরকারকে।

৮. রাম মন্দির ন্যাস কমিটির ভূমিকাকেও গুরুত্ব দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।  জমির মালিকানা নিয়ে নির্মোহী আখাড়ার দাবি খারিজ করলেও তাদেরকে সুপ্রিম কোর্ট প্রস্তাবিত ট্রাস্টের সদস্য করতে হবে।

৯. ভারতের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ জানান, সুপ্রিম কোর্টের রায় হল সর্বসম্মত। রায় নিয়ে পাঁচ জন বিচারপতি সহমত হয়েছেন।

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0204 seconds.