• বিদেশ ডেস্ক
  • ০৩ নভেম্বর ২০১৯ ১১:২৩:৫৪
  • ০৩ নভেম্বর ২০১৯ ১১:২৩:৫৪
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

মহারাষ্ট্রে কি জোট সরকার গড়ছে কংগ্রেস-শিবসেনা?

ছবি: সংগৃহীত

ভারতের মহারাষ্ট্রে শিবসেনার সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে সরকার গঠনে কংগ্রেস প্রধান সোনিয়া গান্ধীকে চিঠি দিয়েছেন দলটির সাংসদ হুসাইন দলওয়াই। বিজেপি ও শিবসেনার মাঝে আসন নিয়ে মনোমালিন্যকে কংগ্রেসের ক্ষমতায় ফিরে আসার জন্য একটি সুযোগ হিসেবে দেখছেন এই নেতা। এমনটি জানিয়েছে দেশটির বার্তা সংস্থা ইন্ডিয়া টুডে।

গতকাল ২ নভেম্বর, শনিবার দেয়া এই চিঠিতে হুসাইন বলেন, ‘বিজেপি এবং শিবসেনা যেহেতু সরকার গঠনের জন্য নিজেদের মাঝে লড়াই করছে, তাই কংগ্রেসের সমর্থকদের কিছু অংশের অভিমত এই যে, কংগ্রেস এবং আমাদের মিত্র এনসিপি মিলে শিবসেনার সাথে জোট সরকার গঠনের জন্য চেষ্টা করা উচিৎ।’

তিনি আরো বলেন, “বিজেপি ও শিবসেনার মাঝে মতাদর্শের ভিন্নতা রয়েছে এবং বিজেপি উগ্রপন্থী আরএসএস’র নীতিমালা অনুসরণ করে যা এক দেশ, এক দল, এক নেতা এই মতাদর্শে দীক্ষিত।”

গত ১ নভেম্বর, শুক্রবার কংগ্রেস সাংসদ হুসাইন দলওয়াই নিউজ এজেন্সি এএনআইকে জানান, বিজেপির চাইতে শিবসেনার আদর্শ ভাল। যদিও কংগ্রেসের আদর্শ থেকে শিবসেনাদের আদর্শ আলাদা, কিন্তু তাদের মতামত বিজেপির চেয়ে ভাল।

তিনি আরো বলেন, ‘সেনা আদর্শ মারাঠি মানুষদের সম্পর্কে কথা বলে এবং ব্যক্তিগতভাবে আমি অনুভব করি যে মারাঠি লোকদের মুখের বিষয়টি উত্থাপন করায় তাদের কোনও ভুল নেই।’

শিবসেনা ক্ষমতায় আসার জন্য কংগ্রেসের সাথে জোট গঠনের কোনো প্রস্তাব নিয়ে আসলে, দলীয় হাইকমান্ড অবশ্যই এটিকে বিবেচনা করা হবে বলে জানান এই কংগ্রেস নেতা ।

উল্লেখ্য, গত ২৪ অক্টোবর ভারতের মহারাষ্ট্রে বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত হয়। তখনই জানা যায়, এনডিএ জোটের দুই শরিক বিজেপি ও শিবসেনা মিলে সেখানে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় আসনে জিতেছে।

কিন্তু গণ্ডগোল বাঁধে অন্য জায়গায়। শিবসেনা জানায়, রাজ্যে অর্ধেক অর্ধেক অংশীদারিত্বে সরকার গঠনের যে দাবি তারা বিগত দুই বছর ধরে করে আসছেন, তা থেকে সরবেন না। আর এ প্রস্তাব উড়িয়ে দিয়ে বিজেপি জানিয়ে দেয়, আগামী ৫ বছরই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীত্ব করবেন বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীশই। বিজেপির এ কঠোর অবস্থানে ক্ষুব্ধ হয় শিবসেনা নেতৃত্ব। 

নির্বাচনে বিজেপি জিতেছে সর্বোচ্চ ১০৫টি আসনে, আর শিবসেনা ৫৬ টি আসনে জিতেছে। ২৮৮ আসনের মহারাষ্ট্রে সরকার গঠন করতে প্রয়োজন ১৪৫টি আসন। এদের দুই দল মিলে এর চেয়ে বেশি আসনে জিতেছে। এনসিপি জিতেছে ৫৪ আসনে ও কংগ্রেস জিতেছে ৪৪ আসনে।

নানা ঘটনার মধ্যে গত ৩১ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত এনসিপি প্রধান শারদ পাওয়ারের বাড়িতে যান। ওইদিনই উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গেও ফোনে কথা বলেন শারদ পাওয়ার। এতে নানা জল্পনা ছড়াতে থাকে।

সূত্রের বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, শিবসেনার প্রয়াত প্রধান বাল ঠাকরে পুত্র উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে শারদ পাওয়ারের ফোনালাপের ফলে রাজ্যের রাজনীতির মোড় ঘুরে যেতে পারে। এমনকি শিগগিরই কংগ্রেস প্রধান সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে দেখা করতে শারদ পাওয়ার দিল্লি যেতে পারেন বলেও জানাচ্ছে কোন কোন গণমাধ্যম।

বাংলা/এসজে/এসএ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0219 seconds.