• বিদেশ ডেস্ক
  • ০১ নভেম্বর ২০১৯ ১১:৪৯:৫৬
  • ০১ নভেম্বর ২০১৯ ১১:৪৯:৫৬
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

ফের উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা

ছবি: সংগৃহীত

জাপান সাগরে নতুন করে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া। সুপার-লার্জ মাল্টিপল রকেট লঞ্চারগুলির ক্ষমতা যাচাই করতে এই পরীক্ষা করে তারা। এ পরীক্ষার প্রতিবাদ জানিয়েছে প্রতিবেশী জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া। গতকাল ৩১ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার এ পরীক্ষাটি চালানো হয় বলে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কেসিএনএ’র বরাতে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

৫ অক্টোবর সুইডেনে শুরু হওয়া ট্রাম্প-কিম বৈঠকের পর প্রথম এই ধরনের পরীক্ষা চালালো উত্তর কোরিয়া। যদিও বছরের শেষে পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র বর্জনের জন্য ওয়াশিংটন বৈঠকে অংশ নিতে যাওয়ার কথা রয়েছে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের। 

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে কথাবার্তা স্তিমিত থাকাকালীন অবস্থায় এই পরীক্ষা করা হয়েছে। যা ইঙ্গিত করে, পিয়ংইয়াংয়ের অস্ত্র বিকাশে অগ্রগতি এসেছে।

গতকাল উত্তর কোরিয়ার আরেকটি রাষ্ট্রীয় পত্রিকা রোডং সিনমুনে হলুদ শিখা এবং ধোঁয়ায় ঘেরা একাধিক রকেট উৎক্ষেপনের একটি ছবি প্রকাশিত হয়।

কেসিএনএ জানায়, ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাটি সফল হয়েছে এবং কিম এতে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। কিম এই অস্ত্রের উদ্ভাবনকারী বিজ্ঞানীদের সাধুবাদ জানিয়েছেন। তবে, গত বৃহস্পতিবার পরীক্ষা চলাকালীন সময় কিম সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। 

কেসিএনএ আরো জানায়, এটি একটি ‘অবিচ্ছিন্ন ফায়ার সিস্টেম’ যা শত্রু হিসেবে চিহ্নিত টার্গেটকে ‘সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস’ করতে সক্ষম হয়েছে।

জাপানের প্রধান মন্ত্রিপরিষদের সচিব ইয়োশিহিদে সুগা উত্তর কোরিয়ার এই পরীক্ষার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, ‘এটি অত্যন্ত দুঃখজনক’। জাতিসংঘের কাছে তারা এই ব্যাপারে আবেদন করবেন বলেও জানান তিনি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান সিনেটর কোরি গার্ডনার বলেন, ‘উত্তর কোরিয়ার আচরণ দিন দিন উগ্রতর হচ্ছে, তাই ট্রাম্প সরকারের প্রশাসনিক নীতিতে তাদের আসার জন্য চাপ প্রোয়গ করতে হবে।’

প্রসঙ্গত, দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় সুরক্ষা উপদেষ্টা চুং ইউই-ইয়ং সংবাদ মাধ্যমগুলোকে জানান, এ ধরণের পরীক্ষা থেকে তাদের ভয়ের কিছুই নেই এবং এটিকে তারা হুমকি হিসেবে দেখছেন না।

এদিকে দক্ষিণ কোরিয়ার সেনাবাহিনীর জানায়, উত্তর কোরিয়ার দক্ষিণ পিয়ংগান প্রদেশ থেকে ক্ষেপণাস্ত্রগুলো নিক্ষেপ করা হয়। সেগুলো পূর্ব সাগরে (জাপান সাগর) গিয়ে আছড়ে পড়ে। বর্তমানে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও আরো ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করা হয় কি’না সে ব্যাপারে নজর রাখছেন তারা।

বাংলা/এসজে/এসএ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0202 seconds.