• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ১১ অক্টোবর ২০১৯ ০৯:২৭:৫১
  • ১১ অক্টোবর ২০১৯ ০৯:২৭:৫১
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

বিকেলে আন্দোলকারীদের সঙ্গে বসছেন বুয়েট ভিসি

ফাইল ছবি

বুয়েটের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বৈঠকের প্রস্তাব দিয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। শিক্ষার্থীরা সব ভবনে তালা মেরে দেয়ার হুমকি দেয়ার পর এ সংবাদ এলো। আজ ১১ অক্টোবর, শুক্রবার বিকাল ৫টায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে নিশ্চিত করেছেন উপাচার্যের ব্যক্তিগত সচিব কামরুল হাসান।

এ বিষয়ে বুয়েটের ছাত্র কল্যাণ দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের কয়েক দফা দাবির মধ্যে ভিসি স্যারের জবাবদিহির বিষয়টি রয়েছে। শিক্ষার্থীদের সব প্রশ্নের জবাব দিতে শুক্রবার বিকেল ৫টায় তাদের সঙ্গে বৈঠক করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।’

বুয়েটের একজন শিক্ষকের মাধ্যমে এ প্রস্তাব শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ড. মিজানুর বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের যেসব দাবি রয়েছে, সেগুলো বুয়েট প্রশাসন কীভাবে বাস্তবায়ন করবে সে বিষয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করবেন তিনি।’

এ আলোচনার মাধ্যমে বুয়েটের চলমান অস্থির পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও মনে করছেন তিনি।

গতকাল ১০ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার সকালে বুয়েট শহীদ মিনারের অবস্থান কর্মসূচি থেকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের কাছে এসে কথা বলার জন্য উপাচার্যকে শুক্রবার বেলা ২টা পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিলেন শিক্ষার্থীরা। এই সময়ের মধ্যে উপাচার্য এসে দেখা না করলে বুয়েটের সব ভবনে তালা মেরে দেওয়ার হুমকি দেন তারা।

আন্দোলনকারী একাধিক শিক্ষার্থী আলোচনার প্রস্তাব প্রসঙ্গে বলেন, ‘ভিসি স্যার চাইলে আমরা যেকোনো সময় আলোচনায় বসতে রাজি আছি।’

তাদের ভাষ্য, ‘ভিসি স্যারের কাছে আমাদের অনেক প্রশ্ন রয়েছে, সেসব প্রশ্নের উত্তর স্যারকে দিতে হবে। পাশাপাশি আমাদের যেসব দাবি রয়েছে তা বাস্তবায়নে শুধু আশ্বাস নয়, এ বিষয়ে প্রশাসনিক প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে।’ তবেই আন্দোলন ছেড়ে ক্লাসে ফিরবেন তারা।

গত ৬ অক্টোবর, রবিবার মধ্যরাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হল থেকে আবরার ফাহাদকে অচেতন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সকাল সাড়ে ৬টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

এর আগে রাত ৮টার দিকে তাকে ওই হলের ২০১১ নাম্বার রুমে ডেকে নিয়ে যান ছাত্রলীগের ‘বড় ভাই’য়েরা। সেখানে তাকে ফেসবুকে সাম্প্রতি বাংলাদেশ-ভারত চুক্তি ও নানা প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসাবাদের নামে মারধর করা হয়। ওই ছাত্রলীগ নেতাদের নির্মম নির্যাতনেই তিলে তিলে মৃতুবরণ করেন আবরার।

এরপর এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত ছাত্রলীগ নেতাদের কঠোর শাস্তির দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বুয়েটে বিক্ষোভ শুরু হয়। বুয়েট শিক্ষার্থীরা ১০ দফা দাবি দিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন।

বাংলা/এসএ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0223 seconds.