• বিদেশ ডেস্ক
  • ০৯ অক্টোবর ২০১৯ ১০:৪৬:৪৪
  • ০৯ অক্টোবর ২০১৯ ১০:৪৬:৪৪
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

পদার্থবিজ্ঞানের নোবেল পেলেন ৩ মহাকাশবিজ্ঞানী

ছবি : সংগৃহীত

মহাকাশ গবেষণায় বিশেষ অবদানের জন্য এ চলতি বছর পদার্থবিজ্ঞানে তিন বিজ্ঞানীকে যৌথভাবে নোবেল পুরস্কার দেয়া হবে। ফিজিকাল কসমোলোজি বিষয়ে গবেষণায় অবদান রাখায় জেমস পিবলস এবং সূর্যের মতো নক্ষত্রকে পরিভ্রমণরত এক্সোপ্লানেটের আবিষ্কারের জন্য মাইকেল মেয়র ও দিদিয়ের কুলোজ এই পুরস্কার পেয়েছেন। সম্মানি হিসেবে ১১ লাখ মার্কিন ডলারও পাবেন তারা।

গতকাল ৮ অক্টোবর, মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করে রয়েল সুইডিশ একাডেমি অব সায়েন্সেস।

এর আগে, পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন মোট ২০৯ জন। লেজার বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য গত বছর যৌথভাবে নোবেল পান যুক্তরাষ্ট্রের আর্থার আসকিন, ফ্রান্সের জেরার্ড মুউরো ও কানাডার ডোনা স্ট্রিকল্যান্ড।

আর এবছর পদার্থবিজ্ঞানে মহাকাশ নিয়ে যুগান্তকারী উদ্ভাবন নিয়ে এ পুরস্কার দেওয়া হলো। এই তিন বিজ্ঞানীর গবেষণার কারণে এখন আরও অসংখ্য এক্সোপ্লানেটের অস্তিত্ব খুঁজে পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

১৮৯৫ সালের নভেম্বরে বিজ্ঞানী আলফ্রেড নোবেল নিজের মোট উপার্জনের ৯৪% (৩ কোটি সুইডিশ ক্রোনার) উইল করে নোবেল পুরস্কার প্রবর্তন করেন। এই অর্থ দিয়েই পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, চিকিৎসাবিজ্ঞান, সাহিত্য ও শান্তিতে নোবেল পুরস্কার দেয়া শুরু হয়। ১৯৬৮-তে নতুন করে যুক্ত হয় অর্থনীতি। পুরস্কার ঘোষণার আগেই মৃত্যুবরণ করেছিলেন আলফ্রেড নোবেল। আইনসভার অনুমোদন শেষে তার উইল অনুযায়ী নোবেল ফাউন্ডেশন গঠিত হয়। ১৯০১ সাল থেকে দেয়া শুরু হয় নোবেল পুরষ্কার।

আলফ্রেড নোবেলের রেখে যাওয়া অর্থের সার্বিক তত্ত্বাবধান করা এবং নোবেল পুরস্কারের সার্বিক ব্যবস্থাপনা করার দায়িত্ব নোবেল ফাউন্ডেশনের। বিজয়ী নির্বাচন করে সুইডিশ একাডেমি এবং নরওয়েজিয়ান নোবেল কমিটি।

১৯০১ সালে প্রবর্তিত হওয়ার পর থেকে সারা পৃথিবীর বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সফল এবং অনন্য গবেষণা ও উদ্ভাবন এবং মানবকল্যাণমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য এই পুরস্কার প্রদান করা হচ্ছে। 

বাংলা/এসএ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0201 seconds.