• বিনোদন প্রতিবেদক
  • ০২ অক্টোবর ২০১৯ ২৩:০৫:০৯
  • ০২ অক্টোবর ২০১৯ ২৩:০৫:০৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

‘জায়েদ খানকে ভোট দিয়েছিলাম, অথচ সেই লাথি দিলো’

পারভীন। ছবি : সংগৃহীত

‘জায়েদ খানকে আমরা ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছি। আর সে নির্বাচিত হওয়ার পরই শিল্পী সমিতি থেকে আমাদের লাথি দিয়ে করে দিয়েছে। অথচ আমি আমি দুইশ ছবিতে অভিনয় করেছি। কিছু দিন আগে মুক্তি পাওয়া ‘পাঙ্কু জামাই’ ছবিতেও কাবিলার বিপরীতে মূল চরিত্রে অভিনয় করেছি। অথচ জায়েদ খান বলছেন আমি নাকী শিল্পী না। আমি যতগুলো ছবিতে অভিনয় করেছি জায়েদ তো অতগুলো ছবি সাইনও করেনি।’

কথাগুলো বলছিলেন পারভীন নামে একজন ঢাকাই ছবির ক্যারেক্টার আর্টিস্ট।

শিল্পী সমিতিতে মিশা সওদাগর ও জায়েদ খান প্যানেল জয়ী হওয়ার পর ক্যাবিনেটের বৈঠক ঠেকে প্রায় ১৫০ জনেরও বেশি এমন ক্যারেক্টার আর্টিস্টকে শিল্পী সমিতির সদস্যদের ভোটাধিকার খর্ব করা হয়েছে। তার প্রতিবাদ করেই বুধবার কথাগুলো বলেন দুইশ’রও বেশি ছবিতে অভিনয় করা এই পারভীন।

তাকে বাদ দেয়ার প্রধান কারণ হিসেবে জানান, শিল্পী সমিতির সামনে সজ্জিত জায়গা জায়েদ খান দাবি করেন সে এনেছেন। কিন্তু জায়গাটা এনেছেন অমিত হাসান। এ সত্যি কথাই জায়েদ খানকে বলেছেন। তাই বাদ দেয়া হয়েছে তাদের। এছাড়াও এফডিসিতে শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে চার বা পাঁচটি গরু কোরবানি হয়। জায়েদ খান বলেন সে কোরবানির গোস্ত দোস্ত শিল্পীদের বাসায় পৌঁছে দেয়া হয়। তাদের কাউকেই তিনি সে গোস্ত দেননি। তবে ডি এ তায়েব তাদের ঈদে বেশ হেল্প করেছেন বলেও জানান।

জায়েদ খান তাদের ন্যুনতম সম্মানও দেখান না অভিযোগ এনে পারভীন বলেন, ‘শিল্পীদের মন হয় আকাশের মতো উদার। অথচ জায়েদ খান হিংসাত্বক রাজনীতি করেন। আমরা ছোট আর্টিস্ট বলে আমাদের প্রাপ্ত সম্মান তো দূরের কথা। আমাদের কোন মূল্যায়নই করেন না। যে জুনিয়র আর্টিস্টদের সম্মান করতে পারে না সে কীভাবে বড়দের সম্মান করববে? অথচ শাবানা ম্যাডামরাও আমাদের দেখে বুকে জড়িয়ে নেয়।

এ সময় শিল্পী সমিতির বাদ পড়া সদস্যদের মধ্যে থেকে মিজানুর রহমান মিজান নামের আরো একজন বলেন, আমি ২ হাজারের বেশি ছবিতে অভিনয় করেছি। নায়ক মান্না আমাদরে বুকে জড়িয়ে নিতেন। প্রায় ১৮ বছর ধরে শিল্পী সমিতিতে ভোট দিয়ে আসছি। এখন জায়েদ খান বলেন আমরা নাকী শিল্পী না। এর চেয়ে অসম্মান আর কী হতে পারে? এর চেয়ে নিজের মরণও ভালো ছিলো।’

এদিকে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির আসন্ন নির্বাচনে লড়ছে দুটি প্যানেল। একটি মৌসুমী-ডি এ তায়েব এবং অন্যটি মিশা সওদাগর ও জায়েদ খান প্যানেল।

মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মনোনয়ন গ্রহণ করার সুযোগ পান প্রার্থীরা। দুই প্যানেলের পক্ষ থেকে ২১ জন করে প্রার্থীর জন্য মোট ৬০টি মনোয়নয়নপত্র গ্রহণ করা হয়। এবারের নির্বাচনে স্বতন্ত্রভাবে কেউ মনোনয়নপত্র ক্রয় করেননি বলেই জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

জায়েদ খান সিনেমা

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0237 seconds.