• ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৯:১৫:৩৯
  • ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৯:১৫:৩৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

টেন্ডার ছাড়াই সরকারি গাছ কেটে ফেললেন চেয়ারম্যান

ছবি : সংগৃহীত

লক্ষীপুর প্রতিনিধি : 

লক্ষীপুরের রামগতি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শরীফ উদ্দিন আজাদের নেতৃত্বে স্থানীয় বন বিভাগের ১০টি বিভিন্ন প্রজাতির সরকারি গাছ টেন্ডার ছাড়াই কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, ‘শুধু একটি গাছ কাটা হয়েছে।’ 

বুধবার রামগতি উপজেলা চেয়ারম্যানের উদ্যোগে পুকুর সংস্কার ও তার বাসভবনের সৌন্দর্য রক্ষার তাগিদ দেখিয়ে গাছ গুলো কাটা হয়েছে বলে জানান উপজেলা রক্ষণাবেক্ষক রাজু। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের ডাক বাংলো পুকুরের আশে-পাশে থাকা এসব গাছ কাটা হয়।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘদিন থেকে বন বিভাগ চত্বরের একটি পুকুর ধারে গাছগুলো বেড়ে ওঠে। ১৫ থেকে ২০ বছর বয়সের ১০টি গাছ চেয়াম্যানের নির্দেশে কাটা হয়। গাছগুলোর মধ্যে আকাশ মণি গাছ, মেহগনী গাছ, পোলা করই ও শিল করই গাছ রয়েছে। টেন্ডার ছাড়াই এসব গাছ কাটা হয়েছে।

গাছ কাটার বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান শরীফ উদ্দিন আজাদ (সোহেল) এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘একটি বড় কড়ই গাছ কাটা হয়েছে।’

সরকারি গাছ টেন্ডার ছাড়া কেটে ফেলার বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা বন কর্মকর্তা আব্দুর জাহের বলেন, ‘গাছ গুলো বন বিভাগের নয়। উপজেলার পরিষদের গাছ।’ তিনি আরো বলেন, ‘উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে সরজমিনে এসে কয়টি গাছ কাটা হয়েছে তা তদন্ত করে গাছে নম্বর দিয়ে চিহ্নিত করা হবে।’

রামগতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রফিকুল হক বলেন, ‘সরকারি কোন গাছ কাটার আগে উপজেলায় গাছ কাটা সংক্রান্ত কমিটির মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরে জেলা প্রশাসকের কাছে অনুমতি নিয়ে বিধিসম্মতভাবে গাছ কাটা হয়। কিন্তু তার উপজেলায় এসব গাছ কাটা সংক্রান্ত কোনো অনুমতি নেয়নি চেয়ারম্যান। সরকারি গাছ কাটার বিষয়ে জানতে পেরে বন কর্মকর্তাকে তদন্ত করার নির্দেশ দেন এ কর্মকর্তা।

বাংলা/এএএ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0213 seconds.