• জাবি প্রতিনিধি
  • ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৮:১০:০৯
  • ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৮:১০:০৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

প্রশাসনের মৌন মিছিল, শিক্ষার্থীদের গণসঙ্গীত, বৈঠক বৃহস্পতিবার

ছবি : সংগৃহীত

উন্নয়ন মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে ‘বিঘ্ন সৃষ্টি’ ও উপাচার্যের বিরুদ্ধে ‘মিথ্যাচারের’ প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ে মৌন মিছিল করেছে উপাচার্যপন্থী শিক্ষক সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’। অন্যদিকে আগের তিনদফা দাবিতে গণসঙ্গীতের আয়োজন করেছে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

সোমবার সকাল সাড়ে ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদ থেকে মৌন মিছিলটি শুরু হয়ে পুরাতন রেজিস্ট্রার ভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়। মিছিল শেষে সেখানে একটি সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। 

সমাবেশে অধ্যাপক আলমগীর কবিরের সঞ্চলনায় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক অজিত কুমার বলেন, ‘উপাচার্য আহ্বান জানিয়েছেন আমরা আলোচনার মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্যা সমাধান করব। আমরা যেন কেউই বিশ্ববিদ্যালয় অস্থিতিশীল না করি। আন্দোলনকারীরা যে তিনদফা দাবি দিয়েছে তা নিয়ে আলোচনা হবে। আমরা পরিশেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখব।’

বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক আবদুল মান্নান চৌধুরী বলেন, ‘আমরা আহ্বান জানাই আমরা সবাই যেন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কাজকর্ম চালিয়ে যায়। সবকিছুর উপরে যেন বিশ্ববিদ্যালয়কে স্থান দেই।’ 

মৌন মিছিলে অন্যান্যদের মধ্যে বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক বশির আহমেদ, অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন, অধ্যাপক ফরিদ আহমেদ, অধ্যাপক রাশেদা আখতার, অধ্যাপক  কৌশিক সাহা, অধ্যাপক সোহেল আহমেদ, অধ্যাপক আবদুল্লাহ হেল কাফী,অধ্যাপক খালিদ কুদ্দুস, অধ্যাপক মুজিবুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শিক্ষার্থীদের গণসংযোগ ও গণসঙ্গীত :

রবীন্দ্রনাথ হল-সংলগ্ন এলাকা থেকে নির্মাধীন হল অন্যত্র সরানো, মহাপরিকল্পনার পুনর্বিন্যাস এবং উপাচার্য ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে আনীত দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তসহ আন্দোলনকারীদের উপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে দিনভর গণসংযোগ চালিয়েছে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারের শিক্ষার্থীরা।

গণংযোগ শেষে সোমবার দুপুর ১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মুরাদ চত্বরে গণসঙ্গীতের আয়োজন করেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

অনুষ্ঠানে নরারুণ ভট্টাচার্যের ‘এই মৃত্যু উপত্যাকা আমার দেশ না’ কবিতা আবৃতি করেন জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম পাপ্পু। তীর হারা এই ঢেউয়ের সাগর পাড়ি দিব রে, নোঙর তোলো তোলো সময় যে হলো হলো,কারার ঐ লোহ কপাট, পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে, মুক্ত করো ভয় আপনা মাঝে শক্তি ধরো নিজেরে করো জয় সহ নানা প্রতিবাদী গণসঙ্গীত পরিবেশন করেন  জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের শিল্পীরা।

বৃহস্পতিবার হতে যাচ্ছে আলোচনা :

এদিকে আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সাথে স্থগিত বৈঠক আগামী বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠানের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে আন্দোলনকারীদের আহবান জানানো হয়েছে। প্রতিবেদককে এই তথ্য নিশ্চিত করেন জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আশিকুর রহমান। তিনি বলেন, ‘প্রশাসনের সাথে আমাদেরকে আগামী বৃহস্পতিবার বসার আহবান জানানো হয়েছে। আমরা সবার সাথে এখনো আলোচনা করিনি। তবে আশা করি সেদিন বসতে পারব।’

বাংলা/এএএ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0253 seconds.