• বিদেশ ডেস্ক
  • ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৪:২১:২৩
  • ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৪:২১:২৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

কাশ্মীরে ঢুকতে চাইছে ২ শতাধিক জঙ্গি!

ছবি : সংগৃহীত

ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করার পর থেকেই কাশ্মীরের পরিস্থিতি থমথমে। এ নিয়ে প্রতিবেশী পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের উত্তেজনা যখন চরমে, তখনই দুই শতাধিক জঙ্গি কাশ্মীরে অনুপ্রবেশ করতে চাইছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

সীমান্ত এলাকা দিয়ে কাশ্মীর উপত্যকায় সহিংসতা ছড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা চলছে অভিযোগ করে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল বলেছেন, ‘প্রায় ২৩০ জন জঙ্গি কাশ্মীরের বিভিন্ন জায়গায় অনুপ্রবেশ করতে প্রস্তুত হয়ে আছে। গোয়েন্দা কর্মকর্তারা এ তথ্য জানিয়েছেন।’

দোভাল বলেন, ‘বিপুল পরিমাণে অস্ত্র চোরাচালান হচ্ছে এবং কাশ্মীরের মানুষকে সমস্যা তৈরি করার জন্যে উসকে দেয়া হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সব নিষেধাজ্ঞা তুলে দিতে চাই। তবে এটা নির্ভর করছে পাকিস্তানের আচরণের উপর। যথেষ্ট উত্তেজক ও প্রতিক্রিয়ামূলক পরিস্থিতি রয়েছে সেখানে।’

তার ভাষ্য, ‘যদি পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদীদের দমনে পদক্ষেপ নেয় যাতে তারা ভারতের মাটিতে অনুপ্রবেশ না করে, যদি পাকিস্তান সন্ত্রাসীদের সংকেত পাঠানো বন্ধ করে দেয়, তবে এই বিধিনিষেধ তুলে নিতে পারি আমরা।’

ইতোমধ্যেই কিছু জঙ্গি নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে ধরা পড়েছে বলেও জানিয়েছে ভারতীয় সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তারা।

নিরাপত্তার স্বার্থেই কাশ্মীর উপত্যকার কিছু অংশে এখনো নানা বিধিনিষেধ জারি রয়েছে। কিছুটা প্রতিবন্ধকতা শিথিল করা হলেও বন্ধ রয়েছে মোবাইল ফোন এবং ইন্টারনেট পরিসেবা। কারণ এগুলোই বিশৃঙ্খলা ছড়াতে ব্যবহার করা হতে পারে বলে মনে করেন ভারতীয় কর্মকর্তারা।

তবে জঙ্গিদের নিজ মাটিতে আশ্রয় ও প্রশিক্ষণ দেয়া এবং অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে কাশ্মীরে পাঠানোর চেষ্টার ভারতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

গত মাসে ভারতের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মাধ্যমে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে নেয় কেন্দ্রীয় সরকার। জম্মু-কাশ্মীরকে দু'টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করার ঘোষণা দেয় তারা। এরপর থেকেই কাশ্মীরকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশী দুটি দেশের সীমান্তে উত্তেজনা চলছে।

বাংলা/এসএ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0259 seconds.