• ২৪ আগস্ট ২০১৯ ১৫:৫১:২৭
  • ২৪ আগস্ট ২০১৯ ১৫:৫১:২৭
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

বাংলাদেশকে দুষছে মিয়ানমার

ছবি : সংগৃহীত

২২ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) দ্বিতীয় দফায় রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে পাঠানোর জন্য প্রস্তুত ছিল সবই। ৩৫৪০ জন রোহিঙ্গা সেদিন মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ার কথা। কিন্তু রোহিঙ্গাদের অনিচ্ছা ও নানা শর্তের মুখে আবারো তা ভেস্তে যায়। আর এজন্য বাংলাদেশকে দুষলো মিয়ানমার।

শুক্রবার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে, বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সঠিক কাগজপত্র দিতে না পারার দাবি করা হয়। তবে বাংলাদেশ নয়, মিয়ানমারের কারণেই প্রত্যাবাসন শুরু করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।

সব ধরনের প্রস্তুতি সত্ত্বেও দ্বিতীয় দফার উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে না পারার জন্য আবারো বাংলাদেশকেই দুষেছে মিয়ানমার। রোহিঙ্গাদের যাচাই বাছাইয়ে সঠিক কাগজপত্র দিতে না পারায় প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া ব্যর্থ হয় বলে দাবি দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের।

৪০০ হিন্দু রোহিঙ্গাকে ফিরিয়ে দিতে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হলেও বাংলাদেশ তা প্রত্যাখ্যান করে বলেও দাবি তাদের।

তবে জাতিসংঘ বলছে বাংলাদেশ নয়, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে প্রস্তুত নয় মিয়ানমার সরকার। উত্তরাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতি রোহিঙ্গাদের ফেরার অনুকূল নয়।

জাতিসংঘের আবাসিক ও মানবিক সহায়তা বিষয়ক সমন্বয়ক কেনিউট অস্টবাই বলেন, রোহিঙ্গারা যাতে ফিরতে পারে আগে সেই পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। সঠিক জীবনমান ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করলে তবেই তারা ফিরতে পারবে। রাখাইনে ফিরে যাওয়ার অধিকার রয়েছে তাদের। রোহিঙ্গারা যখন ফিরে যাবে তারা যেন স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারে সে পরিবেশও গড়ে তুলতে হবে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ জানায়, গণহত্যার উদ্দেশ্যেই ২০১৭ সালে যৌন সহিংসতা চালানোর পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের দেশত্যাগে বাধ্য করে মিয়ানমারের সেনারা।

গেল বছরের ১৫ নভেম্বরও একইভাবে প্রত্যাবাসনের দিন-তারিখ ঠিক করা হয়েছিল। তবে রোহিঙ্গাদের নানা শর্তে প্রত্যাবাসন কার্যক্রম সেবারও ভেস্তে যায়।

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0208 seconds.