• বিদেশ ডেস্ক
  • ১২ আগস্ট ২০১৯ ১৭:২৯:০২
  • ১২ আগস্ট ২০১৯ ১৭:২৯:০২
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

কাশ্মীরের অধিকাংশ মসজিদে হয়নি ঈদের নামাজ

ছবি : সংগৃহীত

বিশেষ মর্যাদা তুলে নেয়ার ঘটনায় কাশ্মীরে জারি করা জরুরি অবস্থা তুলে নিয়ে ঈদের আগের দিন রবিবার ফের জারি করা হয়েছে। এতে আজ ঈদের দিনে কাশ্মীরের অধিকাংশ মসজিদে ঈদ নামাজ হয়নি। আতঙ্ক আর চলাফেরায় নিয়ন্ত্রণে কাশ্মীর কার্যত এখনো অবরুদ্ধ হয়ে আছে।

সোমবার ঈদের দিনে পুরো কাশ্মীরের পথঘাট থমথমে। তবে কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগরে কড়া নিরাপত্তার মধ্যেই কয়েকটি মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন সেখানকার মুসলিমরা।

ভারতের সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়, কাশ্মীরের ও শ্রীনগরের বেশিরভাগ মসজিদে ঈদের নামাজ আদায়ের অনুমতি দেয়নি দেশটির সরকার। ফলে ভারতের একমাত্র মুসিলম সংখ্যাগরিষ্ঠ ‘রাজ্যটিতে’ ঈদের কোনো আমেজ নেই।

সরকারি তরফে বলা হচ্ছে, জম্মু-কাশ্মীরের পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ। তবে বিবিসির প্রকাশ করা এক ভিডিওচিত্রে দেখা যায়, গোটা কাশ্মীরের হাজারো মানুষ বিক্ষোভ করেছে। গত শুক্রবার জুমার নামাজ পড়ার জন্য কারফিউ কিছু সময়ের জন্য তুলে নেয়া হলে বিক্ষোভ করে তারা।

জম্মু-কাশ্মীরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, রাজ্যটির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ ও মেহবুবা মুফতিসহ জ্যেষ্ঠ বেশ কয়েকজন রাজনীতিবিদ, যারা গত সপ্তাহ থেকে গ্রেপ্তার রয়েছেন, তাদেরকে স্থানীয় মসজিদগুলোতে ঈদ জামাতে অংশ নেয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

সরকার জানিয়েছে, গত শনিবার নিরাপত্তা শিথিল করার পরে শ্রীনগরে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি, তার জেরেই ফের সেখানে কারফিউ জারি করা হয়।

গত ৫ আগস্ট নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন কট্টর হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকার জম্মু ও কাশ্মীরের সাংবিধানিক বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে এবং রাজ্যটিকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত করে। তার আগে থেকেই কাশ্মীরের মানুষকে রীতিমতো বন্দি করা হয়েছে।

বিশ্বের সবচেয়ে সামরিকায়িত একটি এলাকা হলো কাশ্মীর। সেখানে লাখো সেনা মোতায়েন রয়েছে। এর মধে কাশ্মীরকে দিখণ্ডিত করার ঘোষণা দেয়ার আগে সেখানে আরো ৩৫ হাজার অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

কাশ্মীর

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0232 seconds.