• জাবি প্রতিনিধি
  • ০৬ আগস্ট ২০১৯ ২০:২১:৫৮
  • ০৬ আগস্ট ২০১৯ ২০:২৯:২৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

কাশ্মীরে আগ্রাসনের প্রতিবাদে জাবিতে বিক্ষোভ

ছবি : সংগৃহীত

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ভারত শাসিত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা দানকারী সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিক্ষোভ মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে ট্রান্সপোর্টে গিয়ে শেষ হয়। 

মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে শিক্ষার্থীরা ভারতের আচরণকে ‘সাম্রাজ্যবাদী’ আখ্যায়িত করে অবিলম্বে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানায়। 

সমাবেশে জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম পাপ্পুর সঞ্চালনায় জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আশিকুর রহমান বলেন, ‘ভারত কাশ্মীরের জনগণের সাথে বেইমানী করেছে। ভারতের সাম্রাজ্যবাদী সংক্রান্ত  থেকে শুধু কাশ্মীর নয় পার্শ্ববর্তী দেশসমূহও রেহাই পায় না। ভারত আমাদের উপরও দেশবিরোধী নানা সংক্রান্ত চালিয়ে যাচ্ছে। রামপাল বিদ্যুতকেন্দ্র তার প্রমাণ। ভারতীয় আগ্রাসনের কারণে আমার বাংলাদেশ ভারতকে বিনামূল্যে ট্রানজটি সুবিধা দিয়ে দেয়। পাখির মত গুলি করে সীমান্তে তারা আমাদের হত্যা করছে। এখন শুনছি আমাদরে জমি ভারতরে বিমানবন্দরের জন্য দেওয়া হবে। আমরা এখান থেকে বলতে চাই বাংলাদেশের ছাত্রজনতা ভারতীয় আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সবসময় সোচ্চার থাকবে।’

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ জাবি শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক জয়নাল আবেদিন শিশির বলেন, ‘বাংলাদেশ নিপীড়নের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছে। তাই সারা বিশ্বের যেখানে মানবতা লুন্ঠিত হবে, মানুষের স্বাধীকার কেড়ে নেওয়া হউক বাংলাদেশ প্রতিবাদ জানাবেই। আমরা কাশ্মীরের সাথে ভারতের আগ্রাসনী আচরণের নিন্দা জানাই এবং কাশ্মীরের জনগণের প্রতি সংহতি জানাই।’

আইন ও বিচার বিভাগের শিক্ষার্থী খান মুনতাসির আরমান বলেন, ‘বাঙালি জাতিগোষ্ঠী সংগ্রামী জাতিগোষ্ঠী। এইদেশের মানুষ সবসময় কাশ্মীরের মানুষের আজাদীর পক্ষে ছিল, আছে ও থাকবে। ভারত, পাকিস্তান ও চীনের সাম্রাজ্যবাদের কবলে পড়ে তাদের সেই স্বাধীকারের সংগ্রাম পূর্ণতা পায়নি। তবু জম্মু-কাশ্মীরের একটা বিশেষ মর্যাদা ছিল ভারতের সংবিধানে। মোদির সাম্প্রদায়িক সরকার স্বৈরতান্ত্রিকভাবে সেই বিশেষ মর্যাদার ধারা বাতিল করেছে। আমরা এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। অতি শিগগিরই কাশ্মীরের জনগণের মর্যাদা ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানাই।’

সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের (মার্ক্সবাদী) সাধারণ সম্পাদক মাহাথির মোহাম্মদ, ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সদস্য রাকিবুল রনি, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জাবি শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক শোভন রহমান।

মিছিলে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ জাবির আহ্বায়ক শাকিল উজ্জামান, যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম, জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মারুফ মোজাম্মেল, বিতর্ক সংগঠন জুডোর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইমুম মৌসুমী বৃষ্টিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। 

বাংলা/এএএ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0223 seconds.