• বিদেশ ডেস্ক
  • ১০ জুলাই ২০১৯ ১৭:১২:০২
  • ১০ জুলাই ২০১৯ ১৭:১২:০২
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

আত্রেয়ী নদীতে পানি না থাকায় বাংলাদেশকে দুষছেন মমতা

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশ বাঁধ তৈরির করার কারণে আত্রেয়ী নদীর পানি শুকিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মঙ্গলবার কলকাতার বিধানসভায় বিরোধীদের প্রশ্নের উত্তরে এ কথা বলেন তিনি। বিষয়টি ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ঢাকার সঙ্গে গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করছে না বলেও মন্তব্য করেন মমতা।

প্রায় ৪০০ কিলোমিটার দীর্ঘ এ নদীর ওপর নির্ভর করে প্রায় হাজারখানেক মানুষের জীবন জীবিকা। এমন খবর প্রকাশ করেছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি।

ভারতের শিলিগুড়ি থেকে শুরু হয়ে বাংলাদেশে ঢুকে আবারও দেশটির দক্ষিণ দিনাজপুরে প্রবেশ করেছে আত্রেয়ী নদী। এই নদীর পনির ওপরেই নির্ভর করে চাষাবাদ থেকে শুরু করে জীবিকা নির্বাহ করে ওই অঞ্চলের কৃষক ও মৎস্যজীবীরা।

এ সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘বাঁধ তৈরির ফলে, দক্ষিণ দিনাজপুরের বাসিন্দাদের ভোগান্তি হচ্ছে। রাজ্য থেকে কেন্দ্রকে সবকিছু পাঠানো হয়েছে, কেন্দ্র বিষয়টি দেখছে এবং তবুও এটিকে হাল্কাভাবে নিচ্ছে।’

ওই খবরে আরো বলা হয়, স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, কয়েক বছর আগে বাংলাদেশ বাঁধ তৈরি করার ফলে গরমকালে এই নদীর পানি খুবই নেমে যাচ্ছে, প্রায় শুকিয়েই যাচ্ছে।

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে কথা বলেছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘তিস্তার পানিবণ্টন মেনে না নেয়ায় তারা দুঃখ পেয়েছে…আমার ক্ষমতা থাকলে, নিশ্চিতভাবেই আমি তাদের সঙ্গে তিস্তার পানিবণ্টন মেনে নিতাম …আমার কোনো সমস্যা নেই…বাংলাদেশ আমাদের বন্ধু…এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।’

তিস্তা নদীর পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে বিধানসভায় মমতা আরো বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন, বাংলাদেশের সঙ্গে পানিবণ্টন চুক্তি করেছিলেন জ্যোতি বসু।’

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0228 seconds.