• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ০৯ জুলাই ২০১৯ ১৯:১৭:৫৭
  • ০৯ জুলাই ২০১৯ ১৯:১৭:৫৭
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে : নিপুন রায়

নিপুন রায়। ছবি : সংগৃহীত

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুন রায় চৌধুরী পাবনায় তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ট্রেনবহরে গুলি ও বোমা হামলা মামলার রায়ের প্রসঙ্গ টেনে ‘বিচার বিভাগ’ সরকার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন।

মঙ্গলবার দুপুর থেকে ঈশ্বরদীর বিভিন্ন এলাকায় যান বিএনপিপন্থী আইনজীবী ও দলের জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুন রায় চৌধুরী।

সেখানে দন্ডপ্রাপ্ত বিএনপি নেতাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে স্বজনদের সান্ত্বনা দেন এবং তাদের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলেন। এ মামলার ব্যাপারে উচ্চ আদালতে প্রয়োজনীয় আইনগত সহযোগিতা দেয়া হবে বলে তাদের আশ্বস্ত করেন আইনজীবীরা।

এ সময় পাবনা আদালতের রায়ের প্রসঙ্গ টেনে নিপুন রায় চৌধুরী বলেন, ‘খুব সিম্পল কথা, ঈশ্বরদীতে ১৯৯৪ সালে সংঘটিত হামলার ঘটনায় কারোই মৃত্যু হয়নি, তারপরও মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। যেখানে কোনো মৃত্যু ঘটে নাই, কোনো হত্যা ঘটে নাই, সেখানে মৃত্যুদণ্ড। তাও একজন নয়, ৯ জন!

তিনি বলেন, ‘এই রায়ের মাধ্যমে এটা প্রমাণিত হয়েছে যে, বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে এবং দেশে কোনো আইনের শাসন বলে কিছু নেই।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার সাইফুর রহমান, মীর হেলাল, ওবাইদুর রহমান চন্দন, অ্যাডভোকেট আরিফা সুলতানা রুমা, ফারহানা আক্তার লুবনা, কাজী রওশন দিল আফরোজ, জাকির হোসেন, মাসুদ খন্দকার, পাবনা জেলা বিএনপির দফতর সম্পাদক জহুরুল ইসলাম, ঈশ্বরদী পৌর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম স্বপন, জেলা যুবদলের সভাপতি মোসাব্বির হোসেন সঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক হিমেল রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক আনিস আহমেদ, পৌর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন জুয়েল, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সভাপতি আরিফ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আমিরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, পৌর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, ঈশ্বরদীতে ১৯৯৪ সালে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ট্রেনবহরে হামলার ঘটনায় করা মামলায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই মামলায় ২৫ জনের যাবজ্জীবন ও ১৩ জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। গত ৩ জুলাই দুপুরে স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-৩ এর ভারপ্রাপ্ত বিচারক এবং অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. রুস্তম আলী এ রায় দেন।

রায় ঘোষণার পর দণ্ডপ্রাপ্তদের কারাগারে পাঠানো হয়। এ মামলায় ৫২ জন আসামির মধ্যে একজন মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তসহ ১৪ জন এখনও পলাতক রয়েছেন এবং পাঁচজন বিভিন্ন সময় মৃত্যুবরণ করেছেন। আসামিরা সবাই ঈশ্বরদী উপজেলা, পৌর বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী।

বাংলা/এএএ

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0245 seconds.