• ০৮ জুলাই ২০১৯ ১৪:৩৩:৪৯
  • ০৮ জুলাই ২০১৯ ১৪:৩৩:৪৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

পারিবারিক ঘরানার নাটক বানানো বাড়ানো উচিত: সুমাইয়া শিমু

অভিনেত্রী সুমাইয়া শিমু। ছবি : সংগৃহীত

ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী সুমাইয়া শিমু। দুই দশকের  বেশি সময় ধরে কাজ করছেন শোবিজ অঙ্গনে। সম্প্রতি বর্তমান ব্যস্ততা ও অন্যান্য প্রসঙ্গে বাংলা’র সঙ্গে কথা বলেছেন এই অভিনেত্রী। 

বাংলা: সম্প্রতি কোন নাটকে কাজ করলেন?

সুমাইয়া শিমু: রুম্মান রশীদ খানের রচনায় সীমান্ত সজলের পরিচালনায় ‘ওয়াটার’ শিরোনামের একটি নাটকের অভিনয় করেছি। কয়েকদিন আগে নাটকটির শুটিং করেছি।

বাংলা: ‘ওয়াটার’ নাটকের গল্প, আপনার চরিত্র, কাজের অভিজ্ঞতা জানতে চাই-

সুমাইয়া শিমু: স্বামী-স্ত্রীকে কেন্দ্র করে ‘ওয়াটার’ নাটকের গল্প সাজানো হয়েছে। স্বামীর সঙ্গে মানিয়ে চলার সংগ্রাম দেখা যাবে এই নাটকে। নাটকে স্ত্রীর ভূমিকায় আমাকে এবং আমার স্বামীর ভূমিকায় তারিক আনাম খানকে দেখা যাবে। এই নাটকের মাধ্যমে তারিক আনামের সাথে প্রথমবারের মতো জুটি বেঁধে কাজ করলাম। এর আগে বেশ কিছু নাটকে একসঙ্গে কাজ করলেও জুটি হয়ে কখনো কাজ করা হয়নি। এরকম শক্তিশালী অভিনেতার সাথে পর্দা ভাগ করাটা বরাবরই সম্মানের, সেই সাথে শিক্ষনীয়। ‘ওয়াটার’ নাটকের পাণ্ডুলিপি, পরিচালনা থেকে শুরু করে পুরো টিমের মধ্যে ইতিবাচক একটি মনোভাব ছিল। তাই কাজটি করে আমরা সবাই তৃপ্ত। দর্শকরা বিনোদনের পাশাপাশি এ নাটক থেকে একটি বার্তাও পাবেন।

বাংলা: নাটকটি কবে প্রচারিত হবে?

সুমাইয়া শিমু: আসন্ন কোরবানির ঈদে একটি বেসরকারি চ্যানেলে নাটকটি প্রচারিত হবে।

বাংলা: আপনি বললেন এই নাটকে পরিবারের গল্প দেখানো হবে। তবে এখনকার নাটকে পারবারিক আবহ কম দেখা যাচ্ছে। আপনি কি মনে করেন পারিবারিক ঘরানার নাটক নির্মাণ বাড়ানো উচিত?

হ্যাঁ। অবশ্যই পারিবারিক ঘরানার নাটক বানানো বাড়ানো উচিত। কারণ পারিবারের গল্পগুলো দর্শক অনেক পছন্দ করে। এটা সত্যি, অনেক সীমাবদ্ধতা মধ্যে নাটক বানাতে হচ্ছে। অনেক সময় বাজেটের কথা চিন্তা করে দুই-তিনজনকে দিয়েই নাটক বানাচ্ছে নির্মাতারা। তারপরেও দর্শকের জন্যই তো আমরা সবাই কাজ করি। তাই তাদের ভালোলাগা বিবেচনা করে নাটকে পরিবারের গল্পগুলো তুলে ধরা উচিত।

বাংলা: আপনাকে নাটকে নিয়মিত দেখা যাচ্ছে না কেন?

সুমাইয়া শিমু: একটা সময় রোজা/ করবানির ঈদকে কেন্দ্র করে আমার ২০-২৫ টা নাটক প্রচারিত হতো। এখন চাইলেও আগের মতো ওতো বেশি কাজ করা সম্ভব না। কারণ অভিনয় ছাড়া আমার অন্যান্য ব্যস্ততাও আছে। তবে সব ব্যস্ততার মাঝে এখনও মোটামোটি নিয়মিত কাজ করছি। তবে পরিমাণে হয়তো কম। আসলে ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই একটু বেছে বেছে কাজ করতাম। এখনও সেভাবেই কাজ করি। আমার সাথে খাপ খায় এমন চরিত্র পেলেই শুধুমাত্র কাজ করি।

বাংলা: ইদানিং নাটকে অশ্লীল সংলাপ ব্যবহার করা হচ্ছে, এ কারণে গত ঈদের নাটক বেশ সমালোচিত হচ্ছে। এ বিষয়ে কি সতর্ক থাকা উচিত কিনা?

সুমাইয়া শিমু: অবশ্যই সংলাপের বিষয়ে স্ক্রিপ্ট রাইটার/নির্মাতাদের খেয়াল রাখা উচিত। অশ্লীল/বাজে সংলাপ ব্যবহার করলে বাংলাদেশের নাটকে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। নাটক দর্শকের জীবনে অনেক প্রভাব ফেলে। নাটকের চরিত্রের সাথে দর্শক নিজের চরিত্রের মিল খুঁজতে চায়। তাই নাটকে এমন কিছু দেখানো বা বলা উচিত না, যেটা নেতিবাচক প্রাভব ফেলতে পারে।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

সুমাইয়া শিমু নাটক

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0193 seconds.