• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৮ জুন ২০১৯ ০১:১৫:৪৫
  • ২৮ জুন ২০১৯ ০১:১৫:৪৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

ট্রাম্পের ছেলের মুখে থুতু ফেললেন বারের নারী কর্মী

ছবি : সংগৃহীত

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ছোট ছেলের মুখে থুতু নিক্ষেপ করে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে স্থান করে নিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো বারের একজন ওয়েট্রেস (বারের নারী কর্মী)। এরিক ট্রাম্পের উপর থুতু ফেলার অভিযোগে তাকে ছুটিতে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার রাতে এরিক ট্রাম্প নৈশভোজে অংশ নেয়ার জন্য শিকাগো শহরের অভিজাত এবং জনপ্রিয় আভিয়ারি বারে যান।  এসময় ওই বারের একজন নারী কর্মী তার মুখে থুতু ফেলেন বলে অভিযোগ করেছেন এরিক ট্রাম্প।      

এদিকে ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের একজন প্রতিনিধি শিকাগো ট্রিবিউনকে জানান, এরিক ট্রাম্পের উপর থুতু ফেলার জন্য ওই নারী কর্মীর বিরুদ্ধে তিনি কোন অভিযোগ করবেন না। তবে থুতু ফেলার পর ওই কর্মীকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, ঘটনার পর ওই কর্মীকে সিক্রেট সার্ভিসের এজেন্টরা জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এরপর অবশ্য তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। শিকাগো পুলিশ প্রধানও টুইটারে এটি নিশ্চিত করেন।

আভিয়েরি বার কর্তৃপক্ষও ট্রাম্পের ছেলের সঙ্গে ঘটা এই অনাকাংখিত ঘটনার কথা স্বীকার করে নিয়েছে। এক বিবৃতিতে বার কর্তৃপক্ষ বলে, ‘আমরা ওই সময় ঘটনাস্থলে ছিলাম না। আমরা কেবলমাত্র এই ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে পারলাম। তবে এটা নিশ্চিত করে বলা যায়, কোনভাবেই কোন কাস্টমারের উপর থুতু ফেলা উচিত নয়।’

অবশ্য এই ঘটনার শাস্তি হিসেবে ওই নারী কর্মীকে ছুটিতে পাঠিয়েছে আভিয়েরি বার কর্তৃপক্ষ। তবে তার নাম প্রকাশ করা হয়নি।

ট্রাম্পের ছেলে এরিক যুক্তরাষ্ট্রের অনলাইন সংবাদমাধ্যম ব্রেইটবার্ট নিউজকে বলেন, ‘নিঃসন্দেহে এটি জঘন্য একটি কাজ।  স্পষ্টতই এটি এমন একজন করেছে যার মানসিক সমস্যা রয়েছে।’

অবশ্য ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ লোকজনদের এধরনের অনাকাংখিত ঘটনার মুখোমুখি হওয়া একদম নতুন কিছু নয়। গত বছর ট্রাম্পের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডার্সকে একটি হোটেল কর্তৃপক্ষ কোন খাবার সরবরাহ না করেই ফিরিয়ে দিয়েছে। কারণ ওই হোটেলের মালিক ট্রাম্প প্রশাসনের নীতির সঙ্গে একমত ছিলেন না।

বাংলা/এফকে

 

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0220 seconds.