• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৩ জুন ২০১৯ ২৩:০২:৪৫
  • ২৩ জুন ২০১৯ ২৩:০৪:১৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

মুসলমানদের পাথর মারা উচিত : শ্রীলঙ্কার বৌদ্ধ ভিক্ষু

ছবি : সংগৃহীত

শ্রীলঙ্কায় বসবাসরত মুসলমানদের পাথর মারার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির বৌদ্ধ  কর্তৃপক্ষের শীর্ষস্থানীয় একজন ভিক্ষু। ওয়ারাকাগোদা শ্রী জ্ঞানারাথন থেরো নামের ওই ভিক্ষু দেশটির সংখ্যাগুরু সিংহলিজ বৌদ্ধদের মুসলিম মালিকানাধীন দোকান কিংবা হোটেল থেকে খাবার না খাওয়ার জন্যও আবেদন জানিয়েছেন।

শ্রীলঙ্কার পত্রিকা কলম্বো টেলিগ্রাফ এবং আল জাজিরায় প্রকাশিত খবরে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

গত সপ্তাহে শ্রীলঙ্কার আশগিরি মহা বিহারের প্রধান ওয়ারাকাগোদা শ্রী জ্ঞানারাথন থেরো ক্যান্ডি জেলার একটি বৌদ্ধ মন্দিরে উপস্থিত ভক্তদের উদ্দেশ্যে এই মন্তব্য করেন। এই সময় দেশটির আইন প্রণেতা মায়ান্থ দিশানায়েক উপস্থিত ছিলেন। তার এই বক্তব্য জাতীয় টেলিভিশনেও প্রচার করা হয়। প্রসঙ্গত, আশগিরি মহা বিহার দেশটির বৃহত্তম এবং প্রাচীনতম বৌদ্ধ মঠগুলোর একটি।

ওয়ারাকাগোদা শ্রীলঙ্কার সেন্ট্রাল কুরুনেগালা জেলার একজন মুসলিম ডাক্তারের উল্লেখ করেন। ওই ডাক্তারের বিরুদ্ধে ৪ হাজার বৌদ্ধ নারীকে ওষুধ প্রয়োগ করে বন্ধ্যা করে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে। যদিও এই অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। কিন্তু আশগিরি মঠের প্রধান ওই মিথ্যা অভিযোগের পুনরাবৃত্তি করে বলেন, ‘কয়েকজন নারী ভক্ত জানিয়েছেন, ওই ডাক্তারের মত এধরনের লোকদের পাথর ছুড়ে মারা উচিত।  আমি নিজে এটা বলছি না। কিন্তু এধরণের ঘটনায় এটাই করা উচিত।’

তিনি আরো বলেন, ‘মুসলমানদের দোকান থেকে কোন কিছু খাবেন না। যারা তাদের দোকান থেকে কোন খাদ্য গ্রহণ করেন ভবিষ্যতে তাদের কোন সন্তান হবে না। এছাড়া মুসলমানরা আমাদের (সিংহলিজ) ভালোবাসে না।’ নিজের এই মন্তব্যের সাফাই গাইতে গিয়ে শীর্ষ এই বৌদ্ধ নেতা জানান, সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ যা চিন্তা করে তিনি তাই বলেছেন।

তার মুসলিম বিদ্বেষী এই মন্তব্যে শ্রীলঙ্কার মুসলমানদের মধ্যে নতুন করে আতংকের সৃষ্টি হয়েছে।  তারা আশংকা করছেন, সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধরা ওয়ারাকাগোদার বক্তব্যে অনুপ্রাণিত হয়ে মুসলমানদের উপর আবার হামলা করবে।  ফলে দাঙ্গাপীড়িত দেশটিতে নতুন করে সহিংসতার সৃষ্টি হবে।

শ্রীলঙ্কার অ্যাক্টিভিস্ট, রাজনীতিক এবং সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের সদস্যরা জানান, গত সপ্তাহে দেয়া ওয়ারাকাগোদার বক্তব্য সাম্প্রদায়িক উত্তেজনার আগুনে যেন ঘি ঢেলেছে।

এদিকে এভাবে প্রকাশ্যে মুসলিমবিদ্বেষী বক্তব্য দেয়ার পরেও ধর্মীয় উত্তেজনা উস্কে দেয়ার জন্য ওয়ারাকাগোদা শ্রী জ্ঞানারাথন থেরোর বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। এমনকি তাকে আটকও করা হয়নি।  

উল্লেখ্য, বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ শ্রীলঙ্কায় মুসলমানরা সংখ্যালঘু।  তবে বেশ কয়েক বছর ধরেই মুসলমানদের সঙ্গে সহিংসতায় জড়িয়ে পড়ছে বৌদ্ধরা। গত এপ্রিলে ইস্টার সানডের সময় শ্রীলঙ্কার কয়েকটি গির্জা এবং হোটেলে বোমা হামলার পর মুসলমানদের বিরুদ্ধে হামলার ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এখন মুসলমানদের বিরুদ্ধে এই সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় বৌদ্ধদের পাশাপাশি খ্রিষ্টানরাও যুক্ত হচ্ছেন।

বাংলা/এফকে

 

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

মুসলমান শ্রীলঙ্কা

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0204 seconds.