• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ১৫ জুন ২০১৯ ২১:৫৮:৫৬
  • ১৫ জুন ২০১৯ ২১:৫৮:৫৬
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

থানায় ঝুলিয়ে নির্যাতন, বরখাস্ত চার পুলিশ

ছবি- সংগৃহীত

থানা হেফাজতে এক যুবককে ঝুলিয়ে নির্যাতনের অভিযোগে তিন পুলিশ কর্মকর্তাসহ চারজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বগুড়া সদর থানায়। 

এ ঘটনায় শনিবার রাতে পুলিশ সুপারের আদেশে তাদের বিরুদ্ধে এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া পুলিশ কর্মকর্তারা হলেন- বগুড়া সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল জব্বার, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) এরশাদ আলী, এএসআই নিয়ামত উল্লাহ এবং মুন্সী নামে পরিচিত কনস্টেবল এনামুল হক।

পুলিশের নির্যাতনের শিকার সোহান বাবু আদর(৩২) বর্তমানে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীনেআছেন। তিনি শহরের সুলতানগঞ্জ পাড়ার সাইদুর রহমানের ছেলে।

নির্যাতনের শিকার সোহান বাবু আদর ও তার বড় বোন শম্পা জানান, বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে থানার কনস্টেবল (মুন্সী) এনামুল হক মোবাইল ফোনে সোহান বাবুকে থানায় আসতে বলেন। থানায় এলে তাকে হাজতে আটকে রাখা হয়। খবর পেয়ে তার বোন রাতেই থানায় গেলে জানানো হয়, একই এলাকার সাথী বেগম তার মেয়েকে ইভটিজিং ও পাওনা টাকা না দেয়ার অভিযোগ করেছেন।

সোহান বাবু আদর জানান, বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার রাত ১১টা পর্যন্ত কনস্টেবল এনামুল, এসআই জব্বার এবং নাম না জানা একজন তাকে কখনও ঝুলিয়ে আবার কখনও হ্যান্ডকাপ দিয়ে হাত বেঁধে নির্যাতন করেছেন। নির্যাতনের কারণে তিনি কয়েকবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। শুক্রবার রাতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে থানা থেকেই তার বাবা ও বোনকে ডেকে আনা হয়। এরপর তাদের কাছ থেকে কয়েকটি সাদা কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়।

তার পরিবারের সদস্যরা শুক্রবার রাতেই সোহান বাবু আদরকে হাসপাতালে ভর্তি করে। 
সোহান বাবুর বড় বোন শম্পা জানান, ঘটনাটি তারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে জানাতে গেলে এসআই জব্বার এবং কনস্টেবল মুন্সী ভয়ভীতি দেখান। এ কারণে তারা রাতে বিষয়টি কাউকে জানাতে পারেননি।

বগুড়া সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বলেন, ঘটনা জানার সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সোহান বাবুর সঙ্গে কথা বলেছি এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত চারজনের নাম আসায় তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আরও তদন্ত চলছে। এ ঘটনার আরও কেউ জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বাংলা/এআর

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0272 seconds.