• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ০৪ জুন ২০১৯ ১৩:৪৭:৪২
  • ০৪ জুন ২০১৯ ১৩:৪৭:৪২
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

ধরা পড়েছে আড়ংয়ের সাড়ে ১৪ কোটির ভ্যাট ফাঁকি

পুরনো ছবি

বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) ব্র্যাকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান আড়ংয়ের বিরুদ্ধে মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট বা মূসক) ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। আড়ংয়ের গুলশান শাখা পণ্য বিক্রয় ও পণ্য মজুদের বিপরীতে প্রায় সাড়ে ১৪ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে।

সম্প্রতি জাতীয় রাজস্ব র্বোডের (এনবিআর) এক নিরীক্ষায় কর ফাঁকির এ তথ্য উঠে এসেছে। সংবাদমাধ্যম শেয়ার বিজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এনবিআরের নিরীক্ষার তথ্য অনুযায়ী, আড়ংয়ের গুলশান শাখা ২০১৫ সালের জুলাই থেকে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট প্রায় ২৬ কোটি ৭৮ লাখ টাকার পণ্য বিক্রয় বা সেবা প্রদান করেছে। সেই সঙ্গে অক্টোবর পর্যন্ত প্রায় ১৭৫ কোটি টাকার পণ্য মজুদ করেছে। পণ্য বিক্রয় ও মজুদ করা প্রায় ২০১ কোটি টাকার বিপরীতে প্রযোজ্য উৎসে মূসক প্রায় ১১ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। সুদ প্রায় দুই কোটি ৫২ লাখ টাকা। সুদসহ প্রতিষ্ঠানটির উৎসে মূসক ফাঁকির পরিমাণ প্রায় ১৪ কোটি ৪১ লাখ টাকা।

অপরিশোধিত ভ্যাট পরিশোধে বাংলাদেশের হস্ত ও কারুশিল্প ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আড়ংয়ের গুলশান শাখা এনবিআরের আওতাধীন কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট, ঢাকা (দক্ষিণ) একটি ভ্যাট নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান। সাপ্লাইয়ার ট্রেড হিসেবে ভ্যাট নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠানটি রেডিমেড গার্মেন্ট সেলস সেন্টার হিসেবে ভ্যাট দিয়ে আসছে।

এনবিআরের নির্দেশে প্রতিষ্ঠানটি নিরীক্ষা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নিরীক্ষা শেষে  প্রতিষ্ঠানটিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করা হয়েছে। পাশাপাশি অন্য শাখা মূসক ফাঁকি দিচ্ছে কি-না তা খতিয়ে দেখছে এনবিআর।

এ বিষয়ে ভ্যাট দক্ষিণ কমিশনারেটের একজন কর্মকর্তা জানান, আড়ংয়ের শুধু গুলশান শাখা নয়, সব শাখার বিরুদ্ধে এনবিআরে ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগ আছে। এনবিআরের নির্দেশে গুলশান শাখা নিরীক্ষা করা হয়।এতে বিপুল পরিমাণ ফাঁকি উদ্ঘাটন করে নোটিশ জারি করা হয়েছে। বকেয়া পরিশোধ না করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রতিষ্ঠানটির আরও ফাঁকি উদ্ঘাটনের চেষ্টা করা হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আড়ংয়ের ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা জানান, আড়ংয়ের বিষয়টি দেখেন তামারা হাসান আবেদ । তিনি দেশের বাইরে যাবেন। তাই এ বিষয়ে তার বক্তব্য জানা যাচ্ছে না। আর ফাঁকির বিষয়ে তাদের কোনো বক্তব্য নেই। যদি নোটিশ জারি করা হয়ে থাকে তাহলে সে অনুযায়ী তারা ব্যবস্থা নেবেন।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

আড়ং ব্র্যাক

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0175 seconds.