• ফিচার ডেস্ক
  • ৩১ মে ২০১৯ ১৩:৫৫:২২
  • ৩১ মে ২০১৯ ১৩:৫৫:২২
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

৮ ঘণ্টার কম ঘুমে যেসব স্বাস্থ্যঝুঁকি

ছবি : সংগৃহীত

শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য ঠিকঠাক রাখতে পর্যাপ্ত ঘুমের কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু কম ঘুমানোর মতোই বেশি ঘুমানোটাও স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। আবার শৈশবে, কৈশোরে, তারুণ্যে, যৌবনে আর বার্ধক্যে ঘুমের চাহিদাও আলাদা আলাদা। তবে প্রতিদিন আট ঘণ্টা ঘুমানো জরুরি। এর চেয়ে কম ঘুম হলে শারীরিক ও মানসিক সমস্যা হতে পারে। আসুন দেখে নিই কম ঘুমানোর কারণে কী ধরনের জটিল সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে।

বিষণ্ণতা

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কম ঘুমানোর ফলে সবচেয়ে আগে প্রভাব ফেলে মনে। এমনকি দীর্ঘদিন ধরে কম ঘুমানোর ফলে ডিপ্রেশন বা বিষণ্নতায় ডুবে যেতে পারেন আপনি।

ত্বকের বয়স বৃদ্ধি

ঘুম ঠিকমতো না হলে কর্টিসল নামে হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যায়। এটি নষ্ট করে দেয় ত্বকের কোলাজেনকে। এদিকে কোলাজেনের কাজ হলো ত্বকের টানটান বাঁধন ধরে রাখা। তাই কোলাজেন গেল তো ত্বকের যৌবনও গেল। শুধু তাই নয়, চোখের নিচে কালি পড়ার সঙ্গে সঙ্গে ডার্ক সার্কেলের সংখ্যাও বেড়ে যাবে।

যৌন ক্ষমতা হ্রাস

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কম ঘুমের ফলে শরীরে সেক্স হরমোনের ক্ষরণ কমতে থাকে। শুধু তাই নয়, কমে যায় উত্তেজনা সৃষ্টিকারী হরমোন।

হৃদরোগ

গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, কম ঘুম বাড়িয়ে দেয় হৃদরোগের সম্ভাবনা। কম ঘুম হৃৎপিণ্ডের স্পন্দনে ব্যাঘাত ঘটায়। এ ছাড়া ব্লাডপ্রেসার, ডায়াবেটিসের মতো বিপজ্জনক রোগগুলোও চিরসঙ্গীর মতো আপনার শরীরে বাসা বাঁধবে।

ভুলে যাওয়ার প্রবণতা

ঘুম পর্যাপ্ত না হলে মস্তিস্কের স্মৃতির অংশটি দুর্বল হতে থাকে, যা ভুলিয়ে দিতে থাকে আপনার অতিপ্রয়োজনীয় ঘটনা বা কথাগুলোও।

দুর্ঘটনার প্রবণতা বাড়ায়

কম ঘুমের ফলে মস্তিষ্ক ঠিকঠাক নির্দেশ দেয়া-নেয়া করতে পারে না। ফলে যা করতে চান, তা না হয়ে অন্য একটা ভুল কাজ হয়ে যায়। এ সমস্যা অত্যন্ত বিপদের।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

ঘুম

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0230 seconds.