• ফিচার ডেস্ক
  • ০৫ মে ২০১৯ ১৬:০৯:৩৩
  • ০৫ মে ২০১৯ ১৬:১১:৪০
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

ঝড়ের আভাস আগেই পায় যে পাখি!

ছবি : সংগৃহীত

এক প্রজাতির পাখি নিয়ে গবেষণা করে বিস্ময়কর তথ্য পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এই পাখিরা ঘূর্ণিঝড়ের অনেক আগেই আভাস পেয়ে যায়। এ জাতের পাখির নাম গোল্ডেন উইং ওয়ার্বলার।

যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল বিজ্ঞানী গোল্ডেন ওয়ার্বলার পাখির এক এলাকা থেকে আরেক এলাকায় যাওয়ার (মাইগ্রেশন) ধরন নিয়ে গবেষণা করছিলেন। তখনই এই পাখিগুলোর এই গুণের কথা সামনে আসে।

পাখিগুলো দৈর্ঘ্যে সাধারণত ১১ থেকে ১২ সেন্টিমিটার হয়। ওজন ৭ থেকে ১২ গ্রাম। মূলত মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকাতে এদের দেখা যায়। তবে ভারতেও ওয়ার্বলার রয়েছে। সেগুলো গ্রিন ওয়ার্বলার।

এই পাখিগুলো সারা শীত মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকায় কাটায়। ডিম পাড়া আর সন্তান প্রতিপালনের জন্য উত্তর-পূর্ব আমেরিকার আপ্পালাচিয়ানসের গ্রেট লেকে চলে যায়। 

এই যাতায়াতের বিষয়টি পর্যালোচনার জন্য বিজ্ঞানীরা দক্ষিণ আমেরিকার টেনেসির এক ঝাঁক ওয়ার্বলারের ওপর পরীক্ষা চালাচ্ছিলেন। তাদের অবস্থানের ওপর জিও লোকেটর দিয়ে নজর রাখা হচ্ছিল।

টেনেসিতে পৌঁছে অবাক হয়ে যান বিজ্ঞানীরা। ওই এলাকা সে সময় প্রচুর ওয়ার্বলারে ভরে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার পরিবর্তে এলাকা ফাঁকা ছিল। কোনও এক অ়জ্ঞাত কারণে তারা এলাকা ছেড়ে ৯০০ মাইল দূরে চলে যায়। এই অদ্ভুত আচরণের কারণটা কিছুদিন পরেই আঁচ করতে পারেন বিজ্ঞানীরা। ওয়ার্বলাররা টেনেসি ছেড়ে চলে যাওয়ার পরই টর্নেডো আসে সেখানে। মারা যান ৩৫ জন মানুষ।

টর্নেডোর প্রভাব কেটে যাওয়ার কয়েক দিন পরই আবার তারা ফিরে আসে। বিজ্ঞানীরা বুঝতে পারেন, টর্নেডোর জন্যই আগাম চলে গিয়েছিল পাখিগুলো।

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাসের অনেক আগে কীভাবে ঝড়ের কথা জেনে ফেলে পাখিগুলো? ন্যাশনাল জিওগ্রাফির তথ্য বলছে, ঝড় থেকে একপ্রকার ইনফ্রাসাউন্ড বের হয়। সেই ইনফ্রাসাউন্ডের কম্পাঙ্ক এতটাই কম যে মানুষ শুনতে পায় না, কিন্তু ওয়ার্বলার পাখি শুনতে পায়।

অনেক দূর থেকেই তাই ঝড়ের আঁচ করে নেয় তারা। তাই সহজেই টর্নেডো এড়াতে পেরেছিল ওই গোল্ডেল উইং ওয়ার্বলাররা।

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0204 seconds.