• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ৩০ এপ্রিল ২০১৯ ১৬:০২:৪৫
  • ৩০ এপ্রিল ২০১৯ ১৬:০২:৪৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন

‘ধূপ ধোঁয়াশা’ কবিতার বইয়ের মোড়ক উম্মোচন

ছবি : সংগৃহীত

গত বুধবার গুলশানের এক রেস্টুরেন্টে অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন বিশিষ্ট কবি ও চিত্রশিল্পী নির্মলেন্দু গুণ।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাঙ্গালা গবেষণার প্রকাশক আনোয়ারা শিরিন, কবি আফজালুল বাসার, কবি নূর হোসেন আল কাদেরী, চিত্রশিল্পী নুঝাত তাবাসসুম বিন্তি ও হালদা ভ্যালী ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম খান ও অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

প্রকৃত পক্ষে ধূপ ধোঁয়াশা বইটি নূর হোসেন আল কাদেরী’র কবিতার বই হলেও এই বইটিতে লুৎফুন্নেসা নীপা ও নুঝাত তাবাসসুম বিন্তি এই দুজন শিল্পীর নিপুণ হাতের ছোঁয়ায় অসাধারণ কিছু ছবি স্থান পেয়েছে এবং সার্বিক সহযোগিতায় পাশে ছিল হালদা ভ্যালী।

হালদা ভ্যালীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম খান বলেন, ‘রুচিশীল, প্রকৃত ও জীবন-অভিজ্ঞতালব্ধ সুসাহিত্য সৃষ্টির ধারাটির বিকাশই আমাদের কাম্য। সাহিত্যপ্রেমী মানুষদের আত্মা বা চিত্তের বিকাশ সাধনের জন্য আমাদের এই প্রয়াস আশা করি আপনাদের সকলের ভালো লাগবে। এ বছরের মত প্রতি বছরেই নতুন কোন কবি, সাহিত্যিক অথবা লেখকের বই প্রকাশে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করবে হালদা ভ্যালী।’  

কবি আফজালুল বাসার বলেন, বাঙ্গালা গবেষণা এবং হালদা ভ্যালী মিলিতভাবে ধূপ ধোঁয়াশা কাব্যগ্রন্থ প্রকাশ করেছে। একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের এই ধরণের শুভবাদী উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। ৩০টি কবিতার সাথে ২৯টি শিল্পকর্মের সাযুজ্যপ্রার্থী একটি সংকলুন এটি।      

কবি নূর হোসেন আল কাদেরী তার বক্তব্য শুরু করেন কবি নির্মলেন্দু গুন এর ‘আমি আজ কারো রক্ত চাইতে আসিনি’ কবিতাটি আবৃত্তির মধ্য দিয়ে। তিনি বলেন তিনি মূলত ফেইসবুক ভিত্তিক সাহিত্য চর্চার গ্রুপ পোস্টবক্সে লেখালেখি করেন এবং এর আগে অন্যান্য কবিদের সাথে বিভিন্ন সংকলনে তার কবিতা ছাপা হলেও ‘ধূপ ধোঁয়াশা’ তার প্রথম একক কাব্যগ্রন্থ। তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন হালদা ভ্যালী পরিবারের প্রতি তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ প্রকাশ করার জন্য।

কবি নির্মলেন্দু গুণ ‘ধূপ ধোঁয়াশা’ বইটি সম্পর্কে বলেছেন যে এটি অত্যন্ত নান্দনিক একটি প্রকাশনা, তিনি কবিতা ও চিত্রকর্মগুলোর ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বলেন কবিতার পাশাপাশি চিত্রকর্মগুলোর আলাদা স্বকীয়তা রয়েছে। তিনি দুই প্রতিভাবান তরুণী শিল্পীর আঁকা ছবি গুলোরও প্রশংসা করেন। তিনি সাহিত্য চর্চায় আধুনিকতার গুরুত্ব তুলে ধরেন এবং আধুনিক প্রযুক্তি ও বিজ্ঞানের উৎকর্ষের সাথে সাথে সাহিত্য চর্চাও এগিয়ে যাবে বলে তিনি অভিমত প্রকাশ করেন।

তিনি আরও বলেন কবিতা ও চিত্রকর্মগুলোর এত সুন্দর মিশ্রণে কবিতার বই আসলেই এখন দুর্লভ। নূর হোসেন আল কাদেরী’র কবিতা ‘কবিতার দেশে’ কবিতাটি পাঠ করেন এবং বলেন যে এটি অত্যন্ত আকর্ষনীয় একটি কবিতা। আমাদের দেশের মতো কেউ কবিতা এতো ভালোবাসে না এবং পৃথিবীর কোথাও তিনি এমনটা দেখেননি। ঢাকাসহ সারাদেশে প্রতিদিনই হচ্ছে কবিতা উৎসব ও বইমেলা। তাই কবি জোড়ালো কন্ঠে বললেন যে এখন সময় এসেছে এই দাবী তোলার যে কবিতার দেশ মানেই বাংলাদেশ।

বইটির মূল্য ধরা হয়েছে ১০০০ টাকা, খুব সহজেই আপনারা দারাজ, বাগডুম অথবা হালদা ভ্যালীর ফেইসবুক পেইজ অথবা হালদা ভ্যালীর ওয়েবসাইট থেকে সরাসরি কিনেতে পারবেন।

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0199 seconds.