• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৪ মার্চ ২০১৯ ০০:১৮:৩০
  • ২৪ মার্চ ২০১৯ ০০:১৮:৩০
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

বোমার চেয়ে দূষিত পানিতে বেশি শিশু মারা যায়

ছবি : সংগৃহীত

যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশগুলোতে বোমা কিংবা বন্দুকের গুলির চেয়ে দূষিত পানিতে শিশু মৃত্যুর হার বেশি বলে উল্লেখ করেছে জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ। সংঘর্ষের তুলনায় এই মৃত্যুর হার তিনগুণ বেশি বলে উল্লেখ করেছে সংস্থাটি।

শুক্রবার ইউনিসেফ প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলে ১৫ বছরের কম বয়সি শিশুরা সহিংসতার তুলনায় দূষিত পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হয়ে বেশি মারা যাচ্ছে। যেসব শিশুর বয়স ৫ বছরের নীচে তাদের অবস্থা আরো করুণ বলে উল্লেখ করা হয়। সহিংসতার তুলনায় দূষিত পানির কারণে এসব শিশুর মৃত্যুহার ২০ গুণ বেশি।

২২ মার্চ বিশ্ব পানি দিবস ছিল। এদিন ইউনিসেফ যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলের শিশুদের নিয়ে এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ডায়রিয়া, কলেরার মত রোগ সংঘর্ষ কবলিত অঞ্চলে বেশি দেখা যায়। এসব অঞ্চলে বিশুদ্ধ পানির সংকট সৃষ্টি হওয়ায় মানুষজনকে বাধ্য হয়েই দূষিত পানি পান করতে হয়। আর এর সহজ শিকার হয় শিশুরা।

বর্তমান বিশ্বে যেসব অঞ্চলে সংঘর্ষ চলছে সেরকম ১৬টি দেশের মধ্যে গবেষণা করে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। ওই দেশগুলোর মধ্যে মিয়ানমার, আফগানিস্তান এবং ইয়েমেনও রয়েছে।

ইউনিসেফ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিসংখ্যান তুলে ধরে জানায়, ২০১৪ থেকে ২০১৬ সালে ডায়রিয়া সংশ্লিষ্ট রোগে এসব অঞ্চলে ৮৫ হাজার শিশু মারা যায়। অথচ একই সময়ে সংঘর্ষের কারণে ৩১ হাজার শিশু মারা গিয়েছিল।

এদিকে ইয়েমেনে কলেরা মহামারিরূপে ছড়িয়ে পড়ার ব্যাপারে বিশেষজ্ঞরা বার বার সতর্ক করে দেয়ার পরও কারো টনক নড়ছে না। তাই সংঘর্ষ কবলিত এসব অঞ্চলে শিশুদের মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষার জন্য বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ ব্যবস্থা বহাল রাখার আবেদন জানানো হয়।

বাংলা/এফকে

 

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0216 seconds.